প্রায় ৮০ হাজার ধর্মপ্রাণ লোক নিয়ে প্রার্থনা সভায় বসবেন পোপ ফ্রান্সিস।

প্রায় ৮০ হাজার ধর্মপ্রাণ লোক নিয়ে প্রার্থনা সভায় বসবেন পোপ ফ্রান্সিস।

অনলাইন নিউজডেস্ক,অভয়নগরবার্তাঃ

আগামী বৃহস্পতিবার তিন দিনের সফরে বাংলাদেশে আসবেন বিশ্বের ক্যাথলিক সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিস। এই সফরে মিয়ানমার থেকে আগত রোহিঙ্গাদের কক্সবাজেরর কুতুপালং ক্যাম্পে দেখতে যাওয়ার কোনো কর্মসূচি নেই। তবে তিনি প্রায় ৮০ হাজার ধর্মপ্রাণ লোক নিয়ে আগামী ১ ডিসেম্বর রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রার্থনা সভায় বসবেন।

সাংবাদিকরা জানতে চাইলে, পোপ ফ্রান্সিসের বাংলাদেশ সফরের প্রধান সমন্বয়কারী বিশপ শরৎ ফ্রান্সিস গমেজ বলেন, পোপের সফরে রোহিঙ্গাদের দেখতে যাওয়ার কোনো কর্মসূচি নেই। কারণ এটা রোহিঙ্গা ইস্যু সৃষ্টি হওয়ার আগে কর্মসূচি ঠিক করা হয়েছে। তবে এটা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বিষয়। মন্ত্রণালয় রোহিঙ্গা ইস্যুতে একটা উদ্যোগ নিতে পারে। তিনি বলেন, আগামী ১ ডিসেম্বর রাজধানীর সোহরাওর্দী উদ্যানে এক প্রার্থনা সভায় অংশ নেবেন পোপ। এতে প্রায় ৮০ হাজার লোক অংশ নেবেন। ইতোমধ্যে এই সভায় অংশ নিতে ৬০ হাজার লোক নিবন্ধন করেছেন।

আড়াই ঘণ্টাব্যাপী এ অনুষ্ঠানে প্রথমে ক্ষমা অনুষ্ঠান, তারপর যথাক্রমে বাইবেল পাঠ, পোপের উপদেশ, যাজক অভিষেক অনুষ্ঠান এবং সবশেষে চক্র অনুষ্ঠান। এ সভা থেকেই ১৬ জন যাজকের নাম ঘোষণা করবেন পোপ। এদিকে গতকাল এক সংবাদ সম্মেলনে দেশের ক্যাথলিক সম্প্রদায়ের প্রধান কার্ডিনাল প্যাট্রিক ডি রোজারিও জানিয়েছেন, বাংলাদেশ সফরে বিশ্বের ক্যাথলিক সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিস মিয়ানমার থেকে আসা রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলবেন। সরকারের অনুমোদন ও সহযোগিতায় রোহিঙ্গাদের একটি ছোট দল যাতে পোপের সঙ্গে দেখা করতে পারে, সে চেষ্টা করা হচ্ছে। তিনি বলেন, প্রথমে একদিনের সফরের পরিকল্পনা করা হয়েছিল। যে সময় সফরের পরিকল্পনা করা হয়, তখন রোহিঙ্গা ইস্যুটি ছিল না। রোহিঙ্গা পরিদর্শনে যাওয়া পোপের সফর কর্মসূচিতে সংযুক্ত করা অসম্ভব হয়ে গেছে। তাই সেখানে পোপের যাওয়া হচ্ছে না।

তিনি আরও বলেন, এর বিপরীতে আমরা চেষ্টা করছি সরকারের অনুমোদন ও সহযোগিতায় রোহিঙ্গাদের একটি ছোট্ট দল এখানে নিয়ে আসার কাজ প্রায় শেষের দিকে।

সংবাদ সম্মেলনে বিশপ ডেভার্স রোজারিও বলেন, বাংলাদেশে ক্যাথলিকম-লী ক্ষুদ্র, তবে তাদের উপস্থিতি ও সেবাদান স্পষ্ট। তারা জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে মানুষের সেবা দিচ্ছে। মিয়ানমারের প্রান্তিক, নির্যাতিত ও নিপীড়িত মানুষের জন্য পোপ আশার বাণী নিয়ে আসবেন।
বিশ্বের ক্যাথলিক সম্প্রদায়ের প্রধান ধর্মগুরু পোপ ফ্রান্সিস ৩০ নভেম্বর তিন দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে বাংলাদেশে আসছেন। সম্প্রীতি ও শান্তির বার্তা নিয়ে আসবেন তিনি।

পোপের তিন দিনের কর্মসূচি ইতোমধ্যে তৈরি হয়েছে। সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধ এবং বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন পোপ। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাতের পাশাপাশি সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ধর্মীয় উপাসনায় যোগ দেবেন।

Leave a Reply