দেশে বছরে প্রায় ২২ হাজার নারী স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হচ্ছেন।

দেশে বছরে প্রায় ২২ হাজার নারী স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত হচ্ছেন।

স্বাস্থ্য ডেস্ক,অভয়নগর বার্তাঃ

স্তন ক্যানসারে আক্রান্তদের মধ্যে প্রায় ৭০ শতাংশ রোগীর চিকিৎসা ছাড়াই মৃত্যু ঘটছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। সচেতনতার অভাবে স্তন ক্যানসারের রোগীরা মারা যাচ্ছেন। এছাড়াও ক্যানসার আক্রান্ত নারীদের মধ্যে স্তন ক্যানসার দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। রোগীর তুলনায় রোগ নির্ণয়ে যন্ত্রপাতি অপ্রতুল বলে মন্তব্য করেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা।

গতকাল জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে রাজধানীর আনোয়ার খান মর্ডান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অনকোলজি বিভাগের উদ্যোগে ‘স্তন ক্যানসার সচেতনতা মাস ২০১৭’ উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তারা এসব কথা বলেন। হাসপাতালটির সার্জারি, প্যাথলজি, গাইনি বিভাগ এতে সহযোগিতা করে।

এ বছর ‘স্তন ক্যানসারে হোন সচেতন, স্ক্রিনিং করুন নিয়ম মতন’-এ স্লোগানে সচেতনতা মাসটি পালন করা হচ্ছে। সংবাদ সম্মেলনে মূল প্রবন্ধে অনকোলজি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. এহতেশামুল হক বলেন, স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত নারীদের অধিকাংশ (৮৯ শতাংশ) বিবাহিত। তাদের গড় বয়স ৪১ বছর।

অনুষ্ঠানে চিকিৎসকরা বলেন, প্রাথমিক পর্যায়ে এ রোগটি নির্ণয় করতে পারলে প্রায় শতভাগ নিরাময় করা সম্ভব। স্তনের সকল পরিবর্তনই ক্যানসার নয়। স্তন ক্যানসার মানেই নিশ্চিত মৃত্যু নয়। স্তন ক্যানসার সম্পর্কে সচেতনতা তৈরি করতে রাষ্ট্রীয় নীতিমালা প্রয়োজন উল্লেখ করে চিকিৎসকরা আরো বলেন, স্তন ক্যানসার বিষয়ে পরিবারের সদস্যদের মধ্যে লজ্জা, ভয় দূর করে সচেতন হতে হবে। পাশাপাশি  ঋতুস্রাবের পরেই নারীদের নিজ স্তন পর্যবেক্ষণ করার পরামর্শ দিয়েছেন চিকিৎসকরা। সেখানে কোনো সমস্যা মনে হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে বলেন তারা। www.abhaynagarbarta.com

তারা বলেন, বাংলাদেশে তারা ২৬-২৭ বছরের তরুণীদের মধ্যেও স্তন ক্যানসার দেখতে পান। স্তন ক্যানসার ঝুঁকি বৃদ্ধির কারণ- পঁয়ত্রিশ বছরের ঊর্ধ্বে, কম বয়সে ঋতুস্রাব হওয়া অথবা দেরিতে ঋতুস্রাব বন্ধ হওয়া, স্তন ক্যানসারের পারিবারিক ইতিহাস থাকলে, ত্রিশ বছরের পর প্রথম সন্তান লাভ বা সন্তান না হওয়া, স্থূলাঙ্গিনী, চর্বি জাতীয় খাদ্য বেশি গ্রহণ ও শাক-সবজি কম গ্রহণ করে থাকলে, শিশুকে বুকের  দুধ না দেয়া হলে এবং মদ পান করলে। স্তন ক্যানসার প্রতিরোধের উপায় ৩০ বছর বয়সের মধ্যে এক
থেকে দুটি সন্তান গ্রহণ, স্বাস্থ্যসম্মত খাদ্য গ্রহণ ও নিয়মিত শারীরিক পরিশ্রম করা, শিশুকে দীর্ঘদিন (পূর্ণ ২ বছর) মায়ের স্তন পান করানো, মদ্য পান থেকে বিরত থাকা, নিয়মিত ব্রেস্ট স্ক্রিনিং করা এবং ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা করা।

আয়োজকরা জানান, স্তন ক্যানসার সচেতনতা মাস উপলক্ষে ২রা থেকে ১২ই অক্টোবর পর্যন্ত হাসপাতালটি বিনামূল্যে স্ক্রিনিং কর্মসূচি পালন করছে। এছাড়া, ৭ই অক্টোবর নির্দিষ্ট একটি গার্মেন্টসে নারী কর্মীদের স্ক্রিনিং এবং ১১ই অক্টোবর সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্ন মহিলা কর্মীদের মধ্যে বিনামূল্যে ব্রেস্ট স্ক্রিনিং কর্মসূচি পালন করা হবে।

উক্ত সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আনোয়ার খান মর্ডান মেডিকেল কলেজের  অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. ফজলুল রহমান, সার্জারি বিভাগের প্রধান ডা. আব্দুস সালাম আরিফ, অবস অ্যান্ড গাইনি বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. সেহেরিন এফ সিদ্দিকা প্রমুখ।

www.abhaynagarbarta.com

Leave a Reply